বুড়ো বানানোর সাথে সাথে আপনাকে বিক্রি পর্যন্ত করে দিতে পারে Face App এর মালিক এই রাশিয়ার সংস্থা…

0
8226

এই ‘ফেস অ্যাপ’ কে নিয়ে ফেসবুকে চলছে এক মজার কান্ড। কিছুদিন ধরে ফেসবুকে দেখা দিয়েছে বার্ধ্যকের ঘনঘটা। প্রায় সব যুবক যুবতী এই অ্যাপের সাহায্যে আনুভব করেনিলেন তাদের বার্ধ্যকের চেহারা কি হতে পারে। আমিও ও আমার বন্ধুরা সবাই ব্যবহার করেছি এই অ্যাপ। আর একটা মজার ব্যপার হল কারোর আবার চেহারা হয়ে উঠছে তাদের মৃত ঠাকুরদার মতো।

আবার কেউ কেউ এই জিনিসটাকে ভালো চখে নিচ্ছেন না। আরও একটা জিনিস হল যে আপনি যদি পুরুষ হন তাহলে মহিলা হলে কেমন দেখতে হত তা সবই হচ্ছে এই অ্যাপের মাধ্যমে। কিন্তু সমস্যা হল টার্মস অ্যান্ড কন্ডিশন নিয়ে।

আভ্যাসগত ভাবে আমরা টার্মস অ্যান্ড কন্ডিশন কেউ ভালোভাবে পড়ি না। শুধু এই অ্যাপের জন্য নয়, সব অ্যাপের টার্মস অ্যান্ড কন্ডিশন ভালোভাবে দেখে নেওয়া উচিৎ। কিন্তু ব্যস্ততার কারনে বা না জেনে আমাদের আর তা হয়ে উঠে না।

এই অ্যাপের টার্মস অ্যান্ড কন্ডিশন হল যে, ‘আপলোডিং অল ইয়োর ফটোস’। আর স্বাভাবিক ভাবেই বুড়ো হওয়ার হুজুগে সব কিছু না দেখে, সব শর্ত সম্মতি দিয়ে এই অ্যাপ ব্যবহার করছেন সকলেই। সঙ্গে সঙ্গে চলে যাচ্ছে ফোনের সব ছবি ওই রাশিয়ার সংস্থাতে।

ব্যবহারকারিরা একটুও ভাবছেন না কি হতে পরে ওইসব ছবি নিয়ে। আর যদি ফেসবুক এর সাথে কানেক্ট করেন, তাহলে আপনার সমস্ত তথ্য জেনে যাচ্ছে সেই রাশিয়ান সংস্থা। ফেস অ্যাপ আপনার ছবি নিয়ে যা খুসি করতে পারে। আপনার পার্সোনাল তথ্য অন্য কাউকে বিক্রয়ও করে দিতে পারে।

যদিও রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে আবস্থিত এই সংস্থার উচ্চপদস্থ কর্তা গঞ্জারভ জানান যে, তারা ব্যবহারকারির কোনো ব্যক্তিগত তথ্য চুরি করেন নি। তারা খুব ভালো সংস্থা, তারা তাদের সংস্থার নামে কোন খারাপ কাজ করতে চান না। তারা এই অ্যাপ থেকে অনেক পরিমানের অর্থ আয় করেছেন বলে জানা গেছে।

কিন্তু সব অ্যাপ সংস্থা ভালো হয় না। কিছুদিন আগে পার্সোনালিটি টেস্টের মতো অ্যাপ ব্যবহারকারিদের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন। সব তথ্য চুরি করে নেওয়ায় তা ইতিমধ্যেই ‘কেম্ব্রিজ অ্যানালিটিকা’ বিতর্কে ফাঁস হয়েছে। তাই এই প্রযুক্তির যুগে বিশ্বাস অবিশ্বাস সব কাল্পনিক ব্যপার হয়ে আসছে। একটু সাবধানে এবং সচেতন ভাবে সবরকম অ্যাপ ব্যবহার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here