১৫ই আগস্ট বৃহস্পতিবার রাখী পূর্ণিমায় এই কাজটি করতে ভুলেবেন না…

0
485

আগামী ১৫ই আগস্ট রাখী পূর্ণিমা। ভাই কিংবা দাদাকে কোন বিপদ আপদ যাতে স্পর্শ করতে না পারে সেই শুভ কামনায় তাদের হাতে রাখী বেঁধে দেন বোন কিংবা দিদিরা। শাস্ত্র মতে যেমন তেমন ভাবে রাখী বাঁধলে সুফল পাওয়া যায় না। রাখী পরানোর বিশেষ কিছু নিয়ম কানুন রয়েছে। তাই রাখী পূর্ণিমাতে কোন কাজটি অবশ্যই করা উচিৎ তা জেনে নিন।

জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে সঠিক সময়ের মধ্যে রাখী পরাতে হয়। কারণ নির্দিষ্ট সময়ের বাইরে রাখী পরালে রাহুর প্রকোপ পরতে পারে, ফলে হতে পারে অনিষ্ট। তাই ১৫ই আগস্ট বৃহস্পতিবার রাখী পরানোর সঠিক সময় জেনে নিন।

এই দিন ভোর ৫ঃ৫৪ মিনিট থেকে বিকাল ৫ঃ৫৯ পর্যন্ত রাখী পরানোর সঠিক সময়। তাই এই সময়ের ভিতরেই আপনার ভাইকে রাখী পরান। অনেকেই ভাইয়ের হাতে রাখী বাঁধার সময় কোন মন্ত্র উচ্চারন করেন না। কিন্তু শাস্ত্র মতে রাখী পরানোর সময় এই মন্ত্রটি না বললে পুরোটাই মাটি।

তাই রাখী পরানোর সময় এই মন্ত্রটি অবশ্যই বলুন। কারণ এই মন্ত্রটি জপ করলে ভাইয়ের মঙ্গল হয়, একই সঙ্গে ভাইয়ের শ্রীবৃদ্ধিও ঘটে। রাখী বন্ধনের নিয়ম অনুসারে নিজের মঙ্গল থালায় রাখীর সঙ্গে চন্দন, কুমকুম ও জ্বলন্ত প্রদীপ রাখুন। এই পুজোর থালাটি সবার আগে ভগবানকে সমর্পণ করবেন।

রাখী পরানোর সময় খেয়াল রাখবেন যাতে ভাই বা দাদারা পূর্ব কিংবা উত্তর দিকে মুখ করে বসেন। রাখী পরানোর সময় আর একটি বিষয়ে খেয়াল রাখবেন যে ভাই বোনের মাথাতে যেন সেই সময় কাপড় থাকে। দাদারা বোনকে উপহার দেওয়ার সময় একটা বিষয় অবশ্যই মাথায় রাখুন। উপহারে যেন কালো কাপড় না দেওয়া হয়। এছাড়া নোনতা কোন খাবার দেবেন না।

পৌরাণিক কাহিনী থেকে জানা যায় একবার শ্রীকৃষ্ণের আঙুল কেটে গেলে দ্রৌপদী তার গায়ের কাপড় ছিড়ে বেঁধে দিয়েছিলেন শ্রীকৃষ্ণের আঙুল। এর বদলে শ্রীকৃষ্ণ কথা দেন যে যেকোনো বিপদে তিনি দ্রৌপদীকে রক্ষা করবেন।

বহু বছর পর কৌরবরা পাশা খেলে দ্রৌপদীকে অপমান করে তার বস্ত্র হরণ করতে গেলে কৃষ্ণ দ্রৌপদীর সন্মান রক্ষা করে সেই প্রতিদান দেন। এভাবেই রাখী বন্ধনের প্রচলন শুরু হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here