সতর্কবার্তা, আগামী ৫ ঘণ্টায় ৪০ কিমি বেগে ধেয়ে আসছে প্রবল ঝড়বৃষ্টি…

0
55143

কয়েকদিন ধরে যা পরিস্থিতি তাতে প্রায় বেশীর ভাগ বঙ্গ বাসির প্রান ওষ্ঠাগত। মে মাসের প্রথমে ফনি এসে এক দিনের স্বস্তির ঘুম দিয়ে গেলেও তার পর থেকে ঘুম উরে গেছে বঙ্গ মানুষের, মে মাস শুরু হতে না হতেই কোলকাতার তাপমাত্রা গিয়ে ছাড়িয়েছে ৪২ ডিগ্রী, পশ্চিমবঙ্গের কোথাও কোথাও তা ৪৬ এও পৌঁছে গেছে।

গত কয়েক দিন ধরে রাজ্য জুড়ে যে ভয়ানক দাবদাহ শুরু হয়েছিলো, আজ থেকে আসতে আসতে সাধারন আকার নেবে। হাওয়ার ছন্দ বদলে গিয়েছিলো ফনির জন্যে। যার ফলে দক্ষিণ পূর্ব দিকের বদলে দক্ষিণ বঙ্গে হাওয়া ঢুকছিল পশ্চিম দিক থেকে।

গ্রামের দিকে অবস্থা আরও করুন আকার ধারন করেছে। সেখানে শহরের মত টাইম কল না থাকার ফলে চোখে পরে প্রবল জলকষ্ট। নদী শুকিয়ে গেছে, পুকুর শুকিয়ে সেখানের সমস্ত জলচর প্রাণী মারাও গেছে যায়। খেতে খেটে খাওয়া চাষিরা চায় একটু বৃষ্টি।

পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায় গ্রীষ্মকালে উষ্ণতার খুব একটা তারতম্য দেখা যায় না। গ্রীষ্মের প্রখরতা বাংলার প্রায় সব জায়গাতেই সমান দেখা যায়। উত্তরবঙ্গ এবং দক্ষিণবঙ্গের মধ্যে বর্ধমান বীরভূম এই অংশে তাপমাত্রা চরমে থাকে।

বিগত কিছু দিন আগেই রাজ্যের ওপর দিয়ে বয়ে গেল ঝড়, তাতে দুইদিন রাজ্যবাসির ঘুম হয়েছে স্বস্তিতে। কিন্তু তার পরেই অবস্থা যেই কার সেই। গরমের প্রখর দাবদাহ বেড়েই চলেছে ক্রমশ। তাপমাত্রা আগের মত ৪২ না ছুলেও তা ৪০ এর বেশ কাছাকাছি পৌঁছে যাচ্ছে দুপুর বেলার দিকে।

ফলে অতিস্ট হয়ে উঠেছে হাজার হাজার মানুষ। কিন্তু রক্ষ্যে এই যে বিকেলের দিক থেকে তাপমাত্রা কমছে বেশ ভালোই। ফলে পরিবেশ বেশ ভালোই ঠাণ্ডা হয়ে যাচ্ছে।

আলিপুর আবহাওয়া অফিস থেকে জানিয়েছে যে এই পরিস্থিতি চলবে ১৭-২০ তারিখ পর্যন্ত। আবহাওয়া দপ্তর সুত্রে খবর যে, আগামী তিন ঘণ্টার মধ্যে ধেয়ে আসছে বৃষ্টি। আবহাওয়া সুত্রে এও জানানো হয়েছে যে মেদিনিপুর ও ঝাড়গ্রামে হতে পারে এই বৃষ্টি। প্রায় ৩০-৪০কিমি বেগে ঝড় বৃষ্টি সহ বজ্রপাত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর। কিন্তু কোলকাতায় বৃষ্টির জন্য আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here