বিছানার নীচে ভুলেও এই জিনিসগুলো রাখবেন না…

0
2035

ফেংসুই অনুযায়ী ঘরের প্রতিটা জিনিসের মধ্যে রয়েছে এক বিশেষ শক্তি যা আপনার জীবনকে বদলে দিতে পারে। ফেংসুই অনুযায়ী বিছানার নিচে কখনোই এই জিনিসগুলো রাখতে নেই, কারণ সেই জিনিস থেকে বেড়িয়ে আসা শক্তি আপনার শরীরকে আকৃষ্ট করতে পারে। ফেংসুই মানুষের ভাগ্য, তার বাসস্থানের গঠন, বাড়ির ভিতরকার আসবাবপত্রের অবস্থান ইত্যাদি বিষয়ের ওপর নির্ভরশীল।

ফেংসুই এটা মেনে চলে যে প্রতিটি বস্তুর নিজস্ব এনার্জি এবং শক্তি রয়েছে। আর এই এনার্জি পজিটিভ বা নেগেটিভও হতে পারে। যেসব বস্তু নেগেটিভ এনার্জি সম্পন্ন তাদের সংস্পর্শে বেশিক্ষণ থাকা কোন মানুষের জীবনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

যেকোনো মানুষই দিনের একটা বড় অংশ কাটায় বিছানায়। রাতের ঘুম ছাড়াও বিশ্রাম বা অন্য কোন প্রয়োজনে বিছানা ব্যবহার হয়ে থাকে। তাই ফেংসুইতে বিছানার নিচে কয়েকটি জিনিস রাখতে বারুন করা হয়েছে। তাহলে দেখে নিন সেই জিনিসগুলো কি কি।

জুতো ঃ- ফেংসুই মতে খাটের নিচে জুতো রাখা একেবারেই অনুচিত। খাটের নিচে জুতো রাখতে হলে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটতে পারে। শারীরিক ক্লান্তি স্বত্বেও ঘুম না আসার সমস্যা দেখা দিতে পারে।

ঝারু ঃ- ফেংসুই অনুযায়ী ভুলেও বিছানার নিচে ঝারু রাখা উচিৎ নয়। এর ফলে দরিদ্রতা বৃদ্ধি পায় এবং সংসারে অভাব অনটন দেখা দেয়। আপনার অর্থ ক্ষতি ঘটতে পারে।

যন্ত্রপাতি ঃ- যন্ত্রপাতি, খেলার পোশাক, ব্যমের জিনিসপত্র ইত্যাদি বিছানার নিচে রাখলে শান্তি বিঘ্নিত হয়। তাছাড়াও দাম্পত্য জীবনেও অশান্তি দেখা দেয়। আপনার সঙ্গীর সাথে দূরত্ব বৃদ্ধি পায়।

বইপত্র ঃ- বই মানুষকে মানসিকভাবে উত্তেজিত করে। তাই ফেংসুইতে বলা হয়েছে খাটের নিচে বই রাখলে ঘুমের সময় প্রয়োজনীয় মানসিক শান্তি অর্জনে অসুবিধার সৃষ্টি হতে পারে।

ছুড়ি বা ধারালো জিনিসপত্র ঃ- ফেংসুই মতে ছুড়ি বা কাঁচি ইত্যাদি হিংসার প্রতীক। এগুলির নেতিবাচক প্রভাবে জীবনে হিংসার পরিমাণ বাড়ে। কাজেই খাটের নিচে ছুড়ি বা অন্যান্য ধারালো জিনিসপত্র রাখা উচিৎ নয়।

তাই দুর্ভাগ্য এড়াতে বিছানার নিচে এই পাঁচটি জিনিস ভুলেও রাখবেন না। তবে সৌভাগ্য বৃদ্ধির জন্য আপনি বিছানার নিচে এই জিনিসগুলো রাখতে পারেন। বলা হয়ে থাকে আয়না, সুগন্ধি দ্রব্য, টাকা জমানোর ভার খাটের নিচে রাখলে জীবন সুখ ও সম্বৃদ্ধিতে ভোরে ওঠে।