বাদাম খেলে নির্মূল হবে ডায়াবেটিস, কখন কিভাবে খাবেন ?

0
18355

বাদাম এমন একটি খাবার যা আমরা প্রায় সকলেই খেতে ভালোবাসি। রাস্তায় ঘুরতে বেড়িয়ে আমরা একটা দুটো বাদামওয়ালা দেখতেই পাই। আবার আমরা কিনে খাইও। এই চিনা বাদাম আমরা অনেকেই খাই কিন্তু জানিনা এর উপকারিতা ঠিক কতটা? এই বাদাম খুব সহজেই পাওয়া যায়, এর দামও খুব বেশি নয়। তাই এই বাদাম প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখা এমন কিছু ব্যয়বহুল ব্যাপার নয়।

চিনা বাদামে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, কার্বো হাইড্রেট এবং প্রোটিন আছে। প্রতিদিন এক মুঠো করে বাদাম খেলে আপনার অনেক শারীরিক উন্নতি হতে পারে। এতে আপনার শরীর থেকে রোগ বালাই অনেক দূরে থাকবে।

বাদাম খাওয়ার উপকারিতা ঃ- আমাদের শরীরে অত্যাধিক কোলেস্টেরল থাকলে তা হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপ, ওজন বৃদ্ধি ও ডায়াবেটিসের মত রোগের সৃষ্টি করে। বাদাম খেলে এতে থাকা অসাধারণ কার্যকরী ফ্যাট শরীর থেকে কোলেস্টেরল দূর করতে সাহায্য করে।

শুধু তাই নয়, বাদাম শরীরের অতিরিক্ত চর্বি কমাতেও সাহায্য করে। প্রতিদিন এক মুঠো করে চিনা বাদাম খেতে পারেন, আবার রাতে কিছু কাঁচা বাদাম জলে ভিজিয়ে রেখে তা সকালে খালি পেটে খেতে পারেন। এতে আপনার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে থাকবে। এতে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে রাখতে সাহায্য করে।

যাদের ওজন বৃদ্ধির সমস্যা আছে তারা অনেকেই বাদাম খেতে চান না আরোও ওজন বৃদ্ধি পাওয়ার ভয়ে। কিন্তু তাদের এই ধারনা ভুল। চিনা বাদাম ওজন বৃদ্ধি তো করেই না উলটে অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধিতে বাধা দেয়। তাছাড়া শরীরের শক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

তাছাড়াও চিনা বাদামে আছে ভিটামিন বি৩, যা মস্তিষ্ককে সুগঠিত করে। প্রতিদিন চিনা বাদাম খেলে মস্তিষ্ক স্বয়ংক্রিয় হয়, চিন্তা শক্তি, স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়। চিনা বাদামের মাখনও খেতে পারেন, এর ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। এতে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট শরীরে রোগকে বাসা বাধতে দেয় না।

তাই প্রতিদিন চিনা বাদাম খেয়ে রোগ প্রোতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলুন। অস্বাস্থ্যকর জীবন যাপন করার থেকে ভালো নিজের প্রতি একটু সচেতন হওয়া। প্রতিদিন এক মুঠো চিনা বাদাম, বাদামের মাখন অথবা কাঁচা বাদাম ভিজিয়ে সকালে খালি পেটে খান, আর নিজেকে সুস্থ রাখুন। কারন স্বাস্থ্যই হল সম্পদ। শরীর ঠিক থাকলে সব ঠিক থাকবে, নাহলে কোন কিছুই ঠিক থাকে না।