খাবারের একটি রুটি বাঁচিয়ে করুন এই কাজ, পাবেন সমস্ত সমস্যা থেকে মুক্তি, থাকবে না টাকার অভাব…

0
19587

একটি রুটির গুরুত্ব অপরিসীম। একটি রুটি যে কত কিছু করতে পারে তা আপনার কোন ধারণাই নেই। একটি রুটি যেমন একটি মানুষের খিদে মেটাতে পারে, তেমন একটি রুটি মানুষের জীবনের হারিয়ে যাওয়া সুখ শান্তি ফিরিয়ে আনতে পারে। অর্থভাগ্য থেকে শুরু করে পারিবারিক সম্পর্ক ভালো করতে পারে। সেটি কিভাবে সম্ভব তা নিয়ে আজকের আলচনা।

১। ঘরের সুখ শান্তি ঃ- ঘরের সুখ শান্তি বজায় রাখতে রুটির ব্যবহার করা হয়। যদি আপনার ঘরে সুখ শান্তির অভাব থাকে তাহলে প্রতিদিন সকালে বাড়িতে বানানো প্রথম রুটি রেখে দিন। আর সেটি খেতে দিন গরুকে। আর রাতের শেষ রুটিটি খেতে দিন কুকুরকে। যদি এই কাজ আপনি করতে থাকেন তাহলে আপনার ঘরের সব অশান্তি শান্তিতে পরিণত হবে।

২। রাহু ও কেতুর শান্তি ঃ- আপনার কুন্ডলীতে যদি রাহু কেতু নিয়ে কোন সমস্যা থাকে তাহলে আপনি রোজ রাতে একটি রুটিতে সরষের তেল মাখিয়ে কালো কুকুরকে খওয়ান। ১৫ দিন এরকম করলে ভালো ফল পাবেন।

৩। পিতৃ দোষ থেকে মুক্তি ঃ- অমাবস্যার রাতে প্রথমে রুটি বানিয়ে নিন। তার সাথে সাথে ক্ষীর বানিয়ে নিন। তারপর রুটি ও ক্ষির একত্রে কোন কাককে খাইয়ে দিন। এর ফলে আপনি শীঘ্রই পিতৃ দোষ থেকে মুক্তি পাবেন।

৪। অসফলতা থেকে বাচুন ঃ- যদি আপনি সমস্ত কাজে অসফল হন তাহলে আপনি রুটির মধ্যে চিনি মাখিয়ে পিঁপড়েকে দিন। এই কাজ করার ফলে আপনার জীবনের সমস্ত অসফলতা দূর হয়ে যাবে। আপনি জীবনের সমস্ত কাজে সফল হবেন।

৫। শাশুড়ি বৌমার সম্পর্ক ভালো করার জন্য ঃ- অনেক শাশুড়ি বৌমার মধ্যেই বিবাদ হয়ে থাকে। আপনি যদি চান আপনার শাশুড়ির সঙ্গে আপনার সমস্ত বিবাদ মিটে যাক, আপনাদের সম্পর্ক মজবুত হোক, তাহলে প্রত্যেক শনিবার প্রথম রুটিটিতে কালো কালিতে শাশুড়ির নাম লিখে নিন, তারপর সেই রুটি কালো কুকুরকে খাইয়ে দিন।

৬। সন্তানের মঙ্গলে ঃ- অনেক সময় বাচ্ছাদের নজর লেগে যায়। সেই সময় তারা খওয়া দাওয়া করতে চায়না। তখন একটি রুটির উপর ১১ বার থেকে ২১ বার গুড় নিয়ে কুকুরকে খাওয়ান। বাচ্ছার নজর দোষ কেটে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here