চার চাকার চালককে হেলমেট না পরার জন্য করা হল জরিমানা…

0
3004

একটা গাড়ি, বাইক, সাইকেল, রিক্সা আমাদের প্রত্যেকের বাড়িতেই প্রায় আছে। দুই চাকার গাড়ি লোকে বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে ব্যাক্তিগত কারনে ব্যাবহার করে, কিন্তু চার চাকার গাড়ি বা রিক্সা মানুষে ব্যাবসা বা উপার্জনের ক্ষেত্রেও ব্যাবহার করেন, কেউ কেউ ভাড়া খাটান আবার কেউ কেউ নিজে চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ তথা পেটের ভাত জোটান। সুতরাং যানবাহনের গুরুত্ব যথেষ্ট।

বাহনের ব্যাখ্যা আমরা পুরাকাল থেকে শুনে এসেছি। আমাদের পুরাণেও বিভিন্ন দেব দেবীর একটি করে বাহন ছিল। যেমন দুর্গার বাহন সিংহ, কার্তিকের বাহন ময়ূর, বিশ্বকর্মার হাতি ইত্যাদি। এই পশুরা হল তাদের বাহন অর্থাৎ তাদের পিঠে চড়ে তারা ভ্রমন করতেন, এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় জেতেন।

বর্তমানে পশুদের পরিবর্তে মানুষ বিভিন্ন রকমের যানবাহন ব্যবহার করে। এই যানবাহন এবং তার রক্ষণাবেক্ষণের জন্যে প্রত্যেকটি দেশে সরকার থেকে কিছু আইন তৈরি করা হয়েছে। এই আইনগুলি না মানার জন্য বা লঙ্ঘন করলে গারির চালক অথবা মালিককে ফাইন দিতে হয়, অর্থাৎ তার ক্ষতিপূরণ দিতে হয়।

আমাদের দেশেও ট্রাফিক নিয়ম পালনের নিয়মাবলি এবং লঙ্ঘনের ক্ষতিপূরণের জন্যে অ্যাক্ট আছে। ১৯৮৮ সালে মোটর ভেহিকেলস আইন পাশ হয় আমাদের দেশে এবং ১৯৮৯ সালের জুলাই মাস থেকে তা লাগু হয়।

এই ট্রাফিক রুলসের ভিত্তি গত কিছু তথ্য আমাদের ছোট বেলা থেকেই বাড়িতে এবং স্কুলে শেখানো হয়। যেমন লাল, হলুদ, সবুজ সিগনালের মানে, কোন দিকে গাড়ি বা সাইকেল বাঁক নিতে গেলে কিভাবে হাত দেখাতে হয় ইত্যাদি।

কিন্তু আজ যে ঘটনাটা নিয়ে আলোচনা করবো সেটা বেশ হাস্যকর। ঘটনাটি ঘটেছে কেরলে। এক ব্যাক্তি মেন রোড ধরে গাড়ি চালাচ্ছিলেন এবং তার সাথে তার পুরো পরিবার ছিল। তাকে দাড় করালেন এক কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ এবং তার হাতে একটা চালান ধরিয়ে দিলয়। তিনি যথারীতি সেই টাকা মিটিয়ে আবার গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে পড়েন।

তিনি মোটেও বাইক বা স্কুটার চালাচ্ছিলেন না, তিনি চালাচ্ছিলেন চার চাকার গাড়ি। কিছু আসার পর সেই ব্যাক্তি লক্ষ্য করেন তার চালানে লেখা আছে তাকে জরিমানা করা হয়েছিলো হেলমেট না পরার জন্যে! হাস্যকর এই ঘটনাটি তিনি চালানের ছবি তুলে সোশাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন এবং উল্লেখিত ঘটনাটির বিবরন দেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here