পাত্রী দেখতে গিয়ে পাত্র যা করলো তা জানেল আপনার চোখ কপালে উঠে যাবে…

0
845

আজ আপনাদের এমন একটি ঘটনা বলবো যা জানার পর আপনি অবাক হয়ে যাবেন। আজকাল দুনিয়া কোথায় গেছে ভাবতেই পারবেন না। বিয়ে নিয়ে অনেক কথা তো আমরা শুনেই থাকি। যেমন বিয়ে ঠিক হওয়ার পর ছেলে বিয়ে না করে পালিয়ে যায়, বা মেয়ে বিয়ের মন্ডপ থেকে প্রেমিকের সঙ্গে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা অনেক শুনেছি।

কিন্তু এই ঘটনাটি একদম আলাদা। ব্যারাকপুরের ছেলে গেছে পাত্রী দেখতে রিষরায়। পাত্রী দেখার পর খাওয়া দাওয়াও করে পাত্র। শুধু খেয়েই তার মন ভরেনি। সঙ্গে চুরি করেছে মেয়ের বাড়ির টাকা পয়সা, মোবাইল ও অন্যান্য মূল্যবান জিনিস।

এই ঘটনায় হতবাক পাত্রীর মা, তার সঙ্গে অবাক পাত্রী নিজে ও আশে পাশের লোকজনেরা। থানায় অভিযোগ করেন মেয়ের বাড়ির লোক। রিষরার ২০ নাম্বর ওয়ার্ডের ঘটনা। এই ঘটনা ঘটার পর মেয়ে ও মেয়ের মায়ের কাছে সব কিছু পরিষ্কার হয়ে যায়।

ছেলেটির সাথে মেয়েটির আলাপ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে। বেশ কিছুদিন ধরে তারা কথা বলত একে অপরের সঙ্গে। কথার জালে ফাসিয়ে মেয়েটির সম্পর্কে এবং তার পরিবার সম্পর্কে সব কথা জানে ছেলেটি। সে জানতে পারে মেয়েটির আর্থিক অবস্থা ভালো নয়।

তার বাবা ক্যাটারিঙ্গে কাজ করে। এই সুযোগ নিয়ে মেয়েটিকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলতে আশে। বাড়িতে ছিল মেয়ে অনুরাধা রায় ও মা নন্দা রায়। আর কেউ না থাকায় মেয়েকেই মিষ্টি আনতে দোকানে পাঠায় মা।

সেই সময় পাত্রের মাসি ও পাত্র জানায় মেয়েকে তাদের পছন্দ। মেয়ের মাও সুদর্শন ও ধনী পাত্র দেখে রঙিন স্বপ্ন দেখতে শুরু করে। খাওয়া দাওয়া করে তারা চলে যাওয়ার পর মেয়েটি লক্ষ করে তার মোবাইল নেই। তখনই নজর যায় খোলা আলমারির দিকে।

তখন তারা দেখে মোবাইলের সঙ্গে আলমারিতে থাকা পাঁচ হাজার টাকাও গায়েব। তখন তাদের কিছু বুঝতে অসুবিধা হয়নি। তারা বুঝে গিয়েছিল তারা প্রতারনার ফাঁদে পড়েছে। তখন তাদের আফসোস করা ছাড়া কিছু করার ছিলনা। এর পর তারা যায় পুলিসের কাছে সাহায্য চাইতে। এমন ঘটনা শুনে তাজ্জব পুলিশও। পাড়া প্রতিবেশিরাও কম অবাক হয়নি এই ঘটনায়।