রাতের বেলা ভুলেও এই ৫টি কাজ করবেন না…

0
1934

শাস্ত্র অনুযায়ী রাতের বেলা এই পাঁচটি কাজ করা নিষেধ, কারণ এই পাঁচটি কাজের মধ্যে এমন কিছু রহস্য লুকিয়ে রয়েছে যা মানুষের জন্য ক্ষতিকর। প্রাচীন শাস্ত্রে দিন ও রাতের জন্য আলাদা আলাদা কাজের কথা বলা হয়েছে। এমনকি কোন কাজ কখন করতে হবে তাও নির্দিষ্ট করে বলা হয়েছে। সেখানে এই পাঁচটি কাজের কথা বলা হয়েছে যা রাতের বেলা করা উচিৎ নয়।

রাত্রিকালে এমন স্থানকে এড়িয়ে যেতে বলে বিষ্ণুপুরাণ যেখানে দুই বা ততোধিক রাস্তা মিলিত হয়েছে। অর্থাৎ যেখানে চৌরাস্তা বা তিনরাস্তা মিলিত হয়েছে সেইসব জায়গায় রাত্রিবেলা যাওয়া উচিৎ নয়। এইসব জায়গাকে তন্ত্রের ভাষায় সন্ধিস্থল বলা হয়।

কারণ এইসব জায়গায় বিভিন্ন প্রকার যাদুটোনা করা হয়। যার ফলে রাতের বেলায় এইসব জায়গায় নানান অশুভ শক্তি বিরাজ করে যা সাধারণ মানুষের বিপদ ডেকে আনতে পারে। তাই রাতের বেলা এইসব জায়গা এড়িয়ে চলাই ভালো।

রাতের বেলা মেয়েদের খোলা চুল রেখে ঘুমানো উচিৎ নয়। বলা হয়ে থাকে যে রাত্রিবেলা মেয়েদের খোলা চুলের ওপর অশুভ শক্তি আকর্ষিত হয়। যার ফলে বিভিন্ন অপশক্তি মেয়েদের খোলা চুলের ওপর ভর করতে পারে। তাই রাতের বেলা কখনোই চুল খোলা রেখে ঘুমাবেন না।

রাত্রিবেলা শ্মশান বা কবরস্থানে যাওয়া উচিৎ নয়। অকারনে রাতে শ্মশান গমনকে নিষিদ্ধ বলে ঘোষণা করে বিষ্ণুপুরাণ। কারণ এই সময় শ্মশান ভুমিতে বিভিন্ন অশুভ শক্তি ও প্রেতাত্মার পাদুর্ভাব সর্বাধিক থাকে। এইসব অপশক্তির প্রভাবে আপনার শরীর স্বাস্থ্য খারাপ হতে পারে।

রাতের বেলা ঘুমানোর সময় সেন্ট বা পারফিউম লাগিয়ে ঘুমানো উচিৎ নয়। অনেকেই আছেন যারা রাতে ঘুমানোর আগে সেন্ট বা পারফিউম লাগিয়ে ঘুমান। শাস্ত্র অনুসারে রাতে লাগানো সুগন্ধ বা খুশবু অশুভ শক্তিকে আকর্ষণ করে।

রাতের বেলায় অসৎ চরিত্রের মানুষদের থেকে সাবধানে থাকবেন। বিষ্ণুপুরানে রাত্রিবেলা ছায়াচ্ছন্ন চরিত্রের মানুষ থেকে সাবধানে থাকতে বলা হয়েছে। যেসব ব্যক্তির চরিত্র স্বচ্ছ নয় তাকেই ছায়াচ্ছন্ন বলা হয়। কারণ রাতের বেলা এই ধরনের মানুষের চরিত্র বদলে যেতে পারে। যার ফলে এইসব ব্যক্তি দ্বারা আপনি ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারেন। তাই রত্রিবেলা ছায়াচ্ছন্ন চরিত্রের মানুষদের সঙ্গ দেওয়া উচিৎ নয়।