ফেব্রুয়ারি মাসে ৫টি গ্রহ রাশিচক্র পরিবর্তন করবে, জেনে নিন তার প্রভাবগুলি…

0
4073

গ্রহ, নক্ষত্র, রাশি, জ্যোতিষ এইসব নিয়ে আমাদের চলতে হয়। অন্যদিকে বর্তমানের এই বিজ্ঞান মনস্ক যুগে অনেকেই এসব বিশ্বাস করেন না। কিন্তু এমন কিছু ঘটনা আছে যা বিজ্ঞানের সাথে মেলে না বা কোনো বৈজ্ঞানিক যুক্তি দিয়ে মেলানো যায় না। জ্যোতিষ মতে এমন অনেক ঘটনা ঘটে যার কোনো সঠিক ব্যাখ্যা পাওয়া যায় না।

কোনো যুক্তির বিনিময় তার কারন খুঁজে বের করতে পারি না আমরা। জ্যোতিষ মতে ফেব্রুয়ারি মাসে ৯ টি গ্রহের মধ্যে ৫ টি গ্রহের রাশিচক্র পরিবর্তন হতে চলেছে। সূর্য, চাঁদ, মঙ্গল, বুধ, শুক্র এই পাচটি গ্রহ তাদের রাশিচক্র পরিবর্তন করবে। গুরু, শনি, রাহু, কেতুর রাশি পরিবর্তন হবে না। কিন্তু জ্যোতিষ মতে রাশিচক্র পরিবর্তনের ফলে ১২ টি রাশির উপর প্রভাব পরবে। আসুন জেনে নেওয়া যাক কি প্রভাব পরবে রাশিগুলোর ওপর।

সূর্য – গ্রহের রাজা সূর্য ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতে মকর রাশিতে অবস্থান করবে। ১৩ ই ফেব্রুয়ারি মকর থেকে কুম্ভে প্রবেশ করবে সূর্য। ১৩ ই ফেব্রুয়ারি কুম্ভ সংক্রান্তি পালিত হবে।

চন্দ্র – এই গ্রহ মাঘ মাসের শুরুতে মেষ রাশিতে প্রবেশ করেছে। ২ রা ফেব্রুয়ারি চাঁদ পরিবর্তন হয়ে বৃষ রাশিতে প্রবেশ করেছে। ৫ ই ফেব্রুয়ারি সকালে মিথুন রাশিতে প্রবেশ করেছে। এরপর চাঁদ প্রতি আড়াই দিন বাদে বাদে রাশিচক্র পরিবর্তন করবে।

মঙ্গল – মাসের শুরুর দিকে মঙ্গল বৃশ্চিক রাশিতে ছিল। পরে ২ তারিখ পরিবর্তন করে ধনু রাশিতে প্রবেশ করেছে। বুধ – মাসের শুরু থেকে বুধ কন্যা রাশিতে রয়েছে। ১৭ই ফেব্রুয়ারির পর ঘর পরিবর্তন করবে। বৃহস্পতি – এই গ্রহ ধনু তে থাকবে এইমাসে। রাশি পরিবর্তন করবে না।

শুক্র – মাসের শুরুর দিকে কুম্ভ রাশিতে ছিল, ২ ফেব্রুয়ারির পর মীন রাশিতে অবস্থান করছে। ২৮ তারিখের পর মেষ রাশিতে অবস্থান করবে। শনি – এই গ্রহ বর্তমানে মকর রাশিতে রয়েছে। রাহু কেতু – এরা ফেব্রুয়ারিতে রাশিচক্র পরিবর্তন করবে না। রাহু মিথুনে আর কেতু ধনু রাশিতে অবস্থান করছে।

গ্রহগুলির প্রভাব কাটাতে যা যা করবেন ঃ- চন্দ্রের জন্য খুব সকালে উঠে রুপোর ঘটিতে দুধ দিয়ে শিবলিঙ্গে অর্পণ করুন। সূর্যের জন্য খুব সকালে উঠে স্নান করে তারপর সূর্যদেবতাকে প্রনাম করে অর্ঘ্য অর্পণ করুন। মঙ্গলের জন্য শিবলিঙ্গে লাল ফুল ও মুসুর ডাল উৎসর্গ করুন।

বুধের দশা কাটানোর জন্য গনপতি দেবের উপাসনা করা উচিত। গুরু গ্রহের জন্য শিবলিঙ্গে ছোলা মসুর ডাল ও ছোলা ময়দার লাড্ডু দেওয়া উচিত। শুক্রের জন্য শিবলিঙ্গে দুধ দেওয়া উচিত। শনি, রাহু ও কেতুর জন্য হনুমান পুজো করা উচিত। মঙ্গল ও শনিবার হনুমান চল্লিশা পাঠ করা উচিত।