কনে যাত্রী নিয়ে বরের বাড়ি গিয়ে বিয়ে করলো পাত্রী, তারপর যা হল…

0
1407

বর্তমানে ভারতীয় সমাজে একটি কথাই বারবার শোনা যায় যে নারী পুরুষের সমান অধিকার। খাদিজা আক্তার খুশি নামে এক মহিলা এই নারী পুরুষের সমান অধিকারের দাবিটির কার্যকরিতা কতটা তা একটি ঘটনার মাধ্যমে প্রমাণ করে দিলেন। বর্তমান যুগে দাঁড়িয়ে নারী পুরুষের সমান অধিকার বিচার করতে গেলে তার কাজটি যথেষ্ট প্রশংসনীয়। এক আশ্চর্যজনক ঘটনা ঘটালেন তিনি।

সকলের মত না করে খাদিজা আক্তার কনে যাত্রী নিয়ে গেলেন বরের বাড়িতে বিয়ে করার জন্য। বরযাত্রীর মাধ্যমে বর আসার পরিবর্তে কনে যাত্রীর মাধ্যমে কনে গেলো এবং অনুষ্ঠান জমে উঠল বিবাহের। কিন্তু তার এই ঘটনা পুরো সমাজ প্রশংসা করছে তা নয়, সমাজের কিছু অংশ এই ঘটনাকে আবার তুচ্ছ তাচ্ছিল্য এবং সমালোচনার চোখেও দেখছেন।

সমস্ত রাজ্য জুড়ে তার এই আচরণ সম্পর্কে সমালোচনার এক সভা গড়ে ওঠে। তবে এই সমালোচনা তাদের দাম্পত্য জীবনে বা খাদিজা আক্তারের এই সিদ্ধান্তের ওপর কোনো প্রভাব ফেলে তার কোনো অনুশোচনা নেই। এই বিষয়ে নিজের বিবাহ একটি নতুন স্টাইলে নতুন রকম ভাবে হয়েছে তা নিয়ে তিনি যথেষ্ট পরিমাণে গর্বিত।

সত্যি নতুন ধরনের এক কাহিনী গড়ে তুলেছেন এই মহিলা। সমাজে এই প্রথম একটি মহিলা একটি পুরুষকে কন্যা যাত্রীসহ বিবাহ করতে আসে এবং বিবাহ করে পুরুষটিকে নিয়ে যায়। সত্যিই এটি সমাজের নারী পুরুষের সমান অধিকার এই মতামতটাকে কার্যকরী করে তোলে।

তার বর হলেন এক ব্যবসায়ী, বিকেলবেলা কনে যাত্রী নিয়ে পাত্রী হাজির হয় বরের বাড়িতে এবং সেখানে প্রচন্ড খরা করে সেরে ফেলা হয় তাদের বিবাহ অনুষ্ঠান এবং বরের বাড়ির লোকজন এতে সম্মতিও জানায়। কনে যখন বরের বাড়ি পৌঁছায় তখন তাকে বরণ করে নিয়ে বিবাহ অনুষ্ঠান শুরু করা হয়।

তাদের রেজিস্ট্রিও হয় এবং সেখানে তারা খাওয়া-দাওয়া সেরে নিয়ে আনন্দ মজা করে আবার বাড়ি ফেরার দিকে রওনা দেয়। এই সিদ্ধান্ত নিয়ে দুই পক্ষের বাড়িতে কোন ঝামেলা অশান্তি হয়নি। তারা আনন্দের সঙ্গেই ছেলে-মেয়ের সিদ্ধান্তে মত দেন।

সত্যি সবার ভাব ভাবনার বাইরে গিয়ে এই ঘটনাটি ঘটালো। কেউ ভাবেনি কোনদিনও কোন মহিলা তার পুরুষের বাড়িতে গিয়ে বিয়ে করে তাকে নিয়ে আসবে। হ্যাঁ বিবাহের নিয়ম ভঙ্গ করে এই বিবাহ ঘটেছে তা নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে, কিন্তু অনেকেই এই ঘটনাটিকে খুবই ভালো চোখে দেখেছেন

অনেকেই অভিনন্দন জানিয়েছেন তাদের। আবার অনেকে এই নিয়ম ভঙ্গ কিছুতেই মেনে নিতে পারেনি, তাদের কাছে এগুলো নিন্দনীয়। তাহলেও এই ঘটনাটি ছিল সমাজের নারী পুরুষের সমান অধিকারের কার্যকরিতা প্রমাণ করার মত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here