জেনে নিন ওটস কি এবং ওটসের উপকারিতা কি এবং কিভাবে খাওয়া যায়…

0
16841

ওটস হল একটি খাদ্যশস্য যা মূলত ঠান্ডা আবহাওয়ায় ভালো ফলন হয়। এটা পশুখাদ্য হিসাবে ব্যপক ব্যবহৃত হলেও মানুষের সাস্থের জন্যেও খুব ভাল একটা উপকারী শস্য। অনেক দিন আগে থেকেই মানুষ ওটস থেকে নানা ধরনের বিস্কুট, কেক, ব্রেড তৈরি করে আসছেন। এটি গম যব পায়রা জাতীয় উদ্ভিদ শস্য। বর্তমানে এই শস্য অনেকেই ব্রেকফ্রাস্টে ব্যবহার করে থাকেন।

ওটসের উপকারিতা ঃ- ওটস একটি খুব উপকারী শস্য। ওটসে প্রচুর পরিমাণ ফাইবার থাকে। এই ফাইবার আমাদের শরীরের অনেক উপকারে আসে। চলুন ছোট্ট করে জেনেনি ওটস আমদের শরীরের কি কি কাজে লাগে।

কোলেস্টেরল কমায় ঃ- ওটসে থাকা ফাইবার লিপিড বা চর্বি কমায়। ওটসে রয়েছে অতি উচ্চ মাত্রায় সহজ দ্রবণীয় বেটা-গলুকান যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর কোলেস্টেরল কমাতে বেশ সহায়তা করে। ওটসের ডায়েটারিফাইবার কোলেস্টরেলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ রাখে।

ওজন কমায় ঃ- যদি ওজন কমাতে ও নিজেদেরকে ফিট রাখতে চান তাহলে প্রতিদিন সকালে এক বাটি ওটস খেতে পারেন। এটাতে আপনি যথেষ্ট লাভবান হবেন। ওটস ওজন কমাতে অনেক ভূমিকা পালন করে। ২০১৩ সালের journal of the American College of Nutretion একটি জরপি বলা হয়েছে “আন্য যেকোনো খাদ্য শস্য তুলনায় ওটমিল দীর্ঘমেয়াদ পর্যন্ত পেট ভর্তি রাখে।” এর কারন হল এতে থাকা গলুকোন ও পেপটাইডের বন্ধন। এই দুই উপাদান হল ক্ষুদা নিয়ন্ত্রণকারী হরমোন।

হৃদরোগ ঝুঁকি কমায় ঃ- ওটসের উচ্চ মাত্রায় অ্যান্টি আক্সিডেন্ট ফ্রি রেডিকেল ও প্রদাহের বিরুদ্ধে কাজ করে। ওটসের এন্টিঅক্সিডেন্ট খুবই অনন্য যাকে এভেনানথ্রামাইডস বলা হয়। এটি ফ্রি রেডিকেল কর্তৃক এল ডি এল কোলেষ্টেরলের ক্ষতি হওয়া থেকে রক্ষা করে। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমিয়ে দেয় ও বেটা গ্লুকোন হার্টের সুস্থতা বজায় রাখতে সহায়ক করে।

রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে ঃ- ওটসে আছে উচ্চ মাত্রায় শর্করা। তাই সকালের বা বিকেলের খাবার হিসাবে এটি শরীরে শক্তি যোগাতে কাজ করে। আবার এতে রয়েছে অধিক পরিমাণে ফাইবার, ফলে এটি ধীরে ধীরে হজম হয় এবং রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণকে সীমিত রাখে।

এছাড়া এই খাদ্য শস্য আরো অনেক রোগ নিরাময় করতে সাহাজ্য করে। যেমন, উচ্চ রক্তচাপ নিরাময়, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধ করে, কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়, চিন্তা দূর করে। এছাড়াও অনেক সুগুন আছে এই খাদ্য শস্যে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here