গতিপথ পরিবর্তন বুলবুলের, রবিবার দুপুরের আগেই শহরে ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়ার আশঙ্কা…

0
6360

বারবার গতিপথ বদলালেও পশ্চিমবঙ্গে আশঙ্কা কাটছে না ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের। বরং শক্তি ক্রমশ বাড়াচ্ছে বঙ্গোপসাগরের উপর সৃষ্টি হওয়া গভির নিম্নচাপ। বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত এটি কলকাতা থেকে ৭৫০ কিলোমিটার দূরে ছিল। তারপর রাতের দিকে সুন্দরবনের দিকে গতিপথ ঘুরে গিয়ে শনিবার বাংলাদেশে আছড়ে পড়ার সম্ভবনা রয়েছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের। জানা যাচ্ছে আয়লার পথ ধরেছে বুলবুল।

তবে গতিপথ এতবার বদলানোর জন্য আবহওয়া দপ্তরও সঠিক সময় বলতে পারছে না। ঝড়ের কারনে আগামী ২ দিন অর্থাৎ শনি ও রবিবার ভারী বৃষ্টির সম্ভবনা রয়েছে দুই ২৪পরগনা ও মেদিনীপুর জেলায়। দীঘা, বকখালি, মন্দারমনি, শঙ্করপুর সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকও উত্তাল থাকবে।

শুক্রবার সকাল থেকে আকাশ মেঘলা থাকবে বলে দপ্তর সুত্রে খবর। বাংলাদেশে খেপুপাড়া থেকে ৭০০ কিলোমিটার দূরে রয়েছে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া এই নিম্নচাপ। সুন্দরবনের উপর দিয়ে বয়ে যেতে পারে এই ঘূর্ণিঝড়। ফলে সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতির সম্ভবনা রয়েছে।

আলিপুর আবহওয়া দপ্তরের অধিকর্তা গণেশ কুমার দাস বলেন “এ রাজ্যে সুন্দরবনের উপর দিয়ে বাংলাদেশের দিকে যেতে পারে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল, এমনই আশঙ্কা। শেষ পর্যন্ত কোনদিকে ঘূর্ণিঝড়টি যেতে পারে সেইদিকে নজর রাখছি তবে উপকুল হয়ে পড়লে গতি অনেকটাই কমবে।

উপকূলবর্তী এলাকায় যারা থাকেন বিশেষ করে নদীর পাড়ে যারা রয়েছেন, তাদের নিয়ে প্রশাসন চিন্তিত। কারন বুলবুল তার তীব্রতা বাড়াচ্ছে। রবিবার ১১৫ থেকে ১২০ কিমি পর্যন্ত গতিবেগ থাকতে পারে। সাগরদ্বীপের ৬০০ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিন-পূর্ব দিকে অবস্থান করছে এই ঝড়।

রাতের মধ্যে এগোবে উত্তর-পশ্চিম দিকে, পথে বাড়তি শক্তি সঞ্চয় করবে। বুলবুলের নিশানা সুন্দরবনের দিকেই। আয়লার পথ ধরেই সুন্দরবনের দিকে এগোচ্ছে বুলবুল, তারপর বাংলাদেশ। কিন্ত যাত্রাপথে দক্ষিণ ২৪ পরগনার উপকুলবর্তী এলাকা পড়বে বলে সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রশাসনও তৎপর রয়েছে। মুখ্যসচিব ভিডিও কনফারেন্স করেছেন জেলাশাসকদের সাথে। সরনো হচ্ছে দীঘা বকখালি মন্দারমনি সাগরদ্বীপ সজেনখালির পর্যটকদের। শনিবার থেকে তারা ওই পর্যটনকেন্দ্রে যেতে পারবেন না।

নবান্নের সাথে সাথে প্রতিটি জেলার মহকুমা স্তরে কন্ট্রোলরুম খোলা হচ্ছে। ফ্লাড রেস্কিউ সেন্টার গুলো তৈরি। বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তর, স্বাস্থ্য ও ত্রান দপ্তর গুলো শনি রবিবার খোলা থাকবে বলে প্রশাসন সুত্রের খবর। মৎস্যজীবীদের সমুদ্র উপকুলবর্তী এলাকায় যাওয়ার উপর নিষেধাক্কা জারি করা হয়েছে।

প্রশাসন সুত্রে খবর পরিস্থিতি অনুযায়ী খাবার ও ত্রানের বন্দোবস্ত করা হয়েছে। আবহওয়া দপ্তর সুত্রে খবর আজ বিকেলের পর থেকে বুলবুলের প্রভাব পড়বে রাজ্যে। আগামী শনি ও রবিবার সুন্দরবনের উপকুলবর্তী এলাকায় ব্যাপক প্রভাব ফেলবে বুলবুল, তবে সবরকম সতর্কতা নিচ্ছে প্রশাসন।