আপনার এই ৫টি “ভুল” সঙ্গীকে ঠেলে দিতে পারে পরকীয়ার দিকে…

0
26450

অনেক সময় না জেনে মহিলারা নিজের সর্বনাশ নিজেই ডেকে আনেন। সব সময় মনে রাখবেন আপনার সঙ্গী যদি বাড়িতে সব সুখ পেয়ে যায় তাহলে কখনোই পরনারীর সাথে সম্পর্কে জরিয়ে পরবেন না। আপনার সঙ্গীর পরকীয়ার জন্য আপনি নিজেই দায়ী। তাই বলে এটা সবার ক্ষেত্রে নয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে ইচ্ছা করেও অনেকে পরকীয়া করে থাকেন।

এই পরকীয়ার পিছনে কিছু কারণ রয়েছে যেগুলি মহিলারা অজান্তে বা কোনো কোনো সময় সব জেনে বুঝে কোরে থাকেন। তারই ফলস্বরূপ তাদের স্বামীরা পরকীয়ার লিপ্ত হন। সে কারণ গুলি সম্পর্কেই আজ আলোচনা করা হবে।

১. আপনার মন বা শরীর যতই খারাপ হোক না কেনো, কখনই শারীরিক সম্পর্কে অনীহা প্রকাশ করবেন না। কারণ বিবাহিত জীবনের সুখ শান্তি নির্ভর করে অনেকটাই এই যৌ-ন জীবনের সুখ শান্তির উপর। যৌ-ন জীবনে সুখ না থাকলে অনেক সময় সঙ্গী পরকীয়ায় জড়িয়ে পরেন।

২. সঙ্গীকে যথাসম্ভব ভালোবাসার চেষ্টা করুন। অনেকেই বিয়ের পর এই ভালোবাসা ব্যাপারটাতে খুব একটা বিশ্বাস করেন না। কিন্তু মনে রাখবেন একটা সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে গেলে ভালোবাসা খুব জরুরি একটা বিষয়। বিয়ের আগে যে প্রেম দুজনের প্রতি থাকে বিয়ের পর সেটাকে আরোও গভীর করে তুলতে হবে। রোজ সঙ্গীকে সময় দিন, কিছুক্ষণ তার সাথে ভালোবাসার কথা বলুন। তাহলেই সম্পর্ক ঠিক থাকবে এবং সঙ্গী পরকীয়ায় জড়িয়ে পরবেন না।

৩. সঙ্গীর কাছে নিজেকে সবসময় আকর্ষণীয় করে রাখুন। ঠিক যেমন প্রেম করার সময় বা বিয়ের পর প্রথম প্রথম করতেন। এই অভ্যাসটা ছেরে দিলে চলবে না। সবসময় নতুন ভাবে সাজার চেষ্টা করুন। সঙ্গী যেটা পছন্দ করেন সেটাই করার চেষ্টা করুন। ড্রেস পোশাক, সাজগোজ করে ফিটফাট থাকুন তার সামনে। তাহলে সে আর অন্য সম্পর্কে জড়িয়ে পরবেন না।

৪. সব সময় নতুনত্ব করার চেষ্টা করুন। যাতে আপনার সঙ্গীর না মনে হয় যে তিনি একঘেয়ে জীবন-যাপন করছেন। এই একঘেয়েমি অনেক সময় পরকীয়ায় ঠেলে দেয় মানুষকে। দুজন ঘুরতে যান, গল্প করুন, নতুন কিছু শিখুন, বন্ধুদের নিয়ে আড্ডা দিন, সিনেমা দেখুন। কখনোও নিজেদের জীবনে একঘেয়েমি প্রকাশ করতে দেবেন না।

৫. সঙ্গীকে কখনোই কোন ভাবে অতিরিক্ত সন্দেহ করতে যাবেন না। মাঝরাতে কারুর ফোন এলে সেটা নিয়ে বেশী তর্ক করবেন না। তাকে বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করুন। সব সময় ভালোবাসা দিয়ে ভরিয়ে রাখুন আপনার সঙ্গীকে। না হলে এই সন্দেহ আপনার সঙ্গীকে পরকীয়ার দিকে ঠেলে দেবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here