বাড়ছে বন্ধ্যাত্বের সমস্যা, ঘরোয়া উপায়ে শুরু করুন প্রাথমিক প্রতিকার…

0
23660

মানুষের শরীরে অনেক সমস্যা থাকে। আমরা অল্পতেই সেইসব সমস্যাগুলো নিয়ে ডাক্তারের কাছে ছুটি। কিন্তু সেইসব সমস্যা সমাধানে অনেক ঘরোয়া উপায়ও আছে। কর্মব্যস্ত জীবন বা অত্যাআধুনিক জীবন যাপন করার জন্য নিয়মিত ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে স্বাস্থ্য, আর এখন সবচেয়ে বড় সমস্যা হল বন্ধ্যাত্ব। যদিও বন্ধ্যাত্ব নিয়ে অনেক ভুল ধারনা রয়েছে আমাদের সমাজে, কিন্তু এখন তা অনেকটাই তা দূর হয়েছে।

কিছু নিয়ম মেনে চললে বন্ধ্যাত্ব থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। বন্ধ্যাত্ব স্বামী স্ত্রী দুজনের কারনে হতে পারে। দেরি করে বিয়ে করা, দেরি করে সন্তান নেওয়া, এইসব কারনে বন্ধ্যাত্বতা আসতে পারে। ছেলেদের ক্ষেত্রে বা মেয়েদের ক্ষেত্রে বয়স বাড়ার সাথে সাথে শুক্রকীটের পরিমান কমে যায়, গুনাগুনও নষ্ট হয়ে যায়।

এছাড়া কিছু হরমোনাল কারন থাকে। শরীর থেকে যে হরমোন আসে তা যথাযথভাবে কাজ করে না, অথবা টেস্টিস যথাযথ জায়গায় থাকে না, সেটি পেটের ভেতর থেকে যায়। অনেক মেয়েদের জরায়ুতে টিউমার থাকে। এছাড়াও সারাদিন যারা বাইরে দাড়িয়ে কাজ করেন তাদের ভেরিকোসিল বেশি হয়।

এই ভেরিকোসিলের জন্য শুক্রাণুর গুনাগুন নষ্ট হয়ে যায়। আর এই সব কারনের জন্য বন্ধ্যাত্ব দেখা যায়। এছাড়াও কতগুলি কারন আছে বন্ধ্যাত্ব হওয়ার। অস্বাভাবিক মাসিক হওয়া। মাসিকের সময় স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি বা কম তরন বের হওয়া।

অনিয়মিত মাসিক হয় অথবা কোনো কারন ছাড়াই মাসিক বন্ধ হয়ে যায়। ব্রনর মাত্রা বৃদ্ধি পায়। সঙ্গমের সময় প্রচুর ব্যাথা হয়। হটাৎ করে ওজন বৃদ্ধি পায়। চুল পরে যায়, চুল পাতলা হয়ে যায়। স্তন থেকে দুধের মত সাদা রস নির্গত হয়।

বন্ধ্যাত্বের সমস্যা মেটানোর জন্য অনেকেই ব্যয়বহুল খরচা করে থাকেন, তবে প্রথমেই ব্যয়বহুল খরচে না গিয়ে বেশ কিছু প্রাথমিক উপায় অবলম্বন করা যেতেই পারে। এই সমস্যা কাটিয়ে ওঠার জন্য রয়েছে বেশ কিছু ঘরোয়া প্রতিকার।

বন্ধ্যাত্ব কাটানোর জন্য প্রথমেই জননগ্রন্থি গুলো সুস্থ রাখা প্রয়োজন। এর জন্য পাতে রাখতে হবে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাবার। যেমন চেরি, পেয়ারা, কমলালেবু, টম্যাটো, লাল ক্যাপসিকাম, পেয়াজ এইসব খাবার অ্যান্টিঅক্সিডেণ্ট সমৃদ্ধ।

বন্ধ্যাত্ব কাটানোর জন্য সকালের জল খাবারকে সারাদিনের খাবারের তুলনায় ভারি করুন। প্রসেসড ফুড কে সরাসরি না করুন। অতিরিক্ত অ্যালকোহল বা ধুমপানের নেশা বন্ধ্যাত্বের জন্য দায়ী। মাল্টি ভিটামিন বন্ধ্যাত্ব কাটাতে কাজে আসে। যাতে শরীর ফ্যট না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।