গরমে ফ্রিজের ঠাণ্ডা জল খেতে ভালোবাসেন, তাহলে জেনে নিন কি কি সমস্যা হতে পারে…

0
5809

গৃষ্মের সাংঘাতিক গরমে সব মানুষের নাজেহাল অবস্থা হয়ে ওঠে। রাস্তায় বেরোলে মনে হয় সারা শরীর পুরে যাচ্ছে। তৃষ্ণায় গলা শুকিয়ে যায়। এমন অবস্থায় অনেকে রাস্তায় দোকান থেকে ঠান্ডা জল কিনে খায়। বাড়ি ফিরে ফ্রিজে রাখা ঠান্ডা জল পান করে তৃষ্ণা মেটাতে। অনেকের আবার ঠান্ডা জল না খাওয়া পর্যন্ত তৃষ্ণা মেটেই না।

কিন্তু অনেকেই জানেন না এই কাজ করে তারা নিজেদের শরীরের কত ক্ষতি করছেন। এটি করে আপনি শুধু নিজের স্বাস্থ্যের সঙ্গে খেলছেন তা নয় আপনি আপনার ভবিষ্যৎও নিজে হাতে নষ্ট করছেন। আজকে আপনাদের জানাবো যে ঠান্ডা জল খেলে আপনার শরীরের কি কি ক্ষতি হতে পারে।

গরমে ঠান্ডা জল খেলে সকলেরই তৃপ্তি হয়, কিন্তু এতে চরম ক্ষতি হয় হার্টের। যখনই আমরা ঠান্ডা জল পান করি তখন আমাদের হার্ট স্পন্দন করা ধীরে ধীরে কমতে শুরু করে। হার্টের নানারকম অসুখ দেখা দিতে থাকে। ঠান্ডা জল ভেগাস নার্ভকে সংকুচিত করে।

যার ফলে হৃদস্পন্দন হ্রাস পায় আর অনেকের ক্ষেত্রে মৃত্যুর কারণ হয়ে ওঠে। ঠান্ডা এবং গরম জল একদম বিপরীতধর্মী। তারা একে অপরের বিপরীতে গিয়ে কাজ করে। খাবার খাওয়ার পর স্বাভাবিক তাপমত্রার জল আমাদের পাচন প্রক্রিয়াকে তরান্বিত করে তোলে। কিন্তু ঠান্ডা জল আমাদের পাচন প্রক্রিয়াতে বিঘ্ন ঘটায়।

এরকম হওয়ার কারণ হল ঠান্ডা জল রক্ত কোষগুলিকে সংকুচিত করে দেয় আর এর ফলে পাচন প্রক্রিয়া ধীরে ধীরে হ্রাস পায়। বাড়ির বড়রা সব সময়ই বারণ করে ঠান্ডা জল খেতে। তারা বলেন ঠান্ডা জল খেলে ঠান্ডা লাগে আর গলা ব্যাথা হয়। এই কথাও একদম ঠিক। ফ্রিজে রাখা জল আমাদের শরীরের ইমিউনো সিস্টেমের ক্ষতি করে।

ঠান্ডা জল আমাদের শরীরে প্রবেশ করা জীবাণুদের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। ফলে গলায় শ্লেষ্মা জমা হয় আর আমাদের সর্দি কাশির মতো সমস্যা হয়। বাড়িতে অনেকে ফ্রিজে মিষ্টি রাখে। সেই মিষ্টি অতিরিক্ত ঠান্ডায় জমে শক্ত হয়ে যায়। কখনও আবার বরফের মতো কঠিন হয়ে যায়।

ঠিক একই রকম ভাবে আমাদের পেটে ঠান্ডা জল গিয়ে পেটে থাকা সব খাবার জমিয়ে দেয়। এর ফলে খাবার হজম হয়না আর মল বৃহদান্ত্রের মধ্যে জমে থাকে। যার থেকে কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here