শশুর বাড়িতে যে বিষয় গুলোর উত্তর কখনোই সরাসরি দেয়া উচিত নয়…

0
6584

শশুর বাড়িতে সব জামাইদেরই আলাদা কদর থাকে। শশুর শাশুড়ির আদরের পুত্র হয়ে থাকেন তারা। তাদের নিয়ে চিন্তা ভাবনাই আলাদা থাকে শশুর বাড়িতে। জামাইকে এত কদর দেওয়ার সব থকে বড় কারণ তাদের আদরের রাজকন্যার দায়িত্ব থাকে জামাইদের ওপর। তাই নিজের মেয়েকে জামাইরা যাতে সুখে শান্তিতে রাখে তার জন্য জামাই আদর তারা বেশ গুছিয়ে করে থাকেন।

তবে জামাইদেরও খেয়াল রাখতে হবে তার শশুর-শাশুরির। তারাও যাতে ভালো থাকে, নিজের মা-বাবার মত তাদের সাথে ব্যবহার করতে হবে। মনে রাখতে হবে, সব সময় কথায় কথায় তাদের মুখের উপর জবাব দেওয়া ঠিক নয়। তারা আপনাকে কোনো আদেশ দিলে সেটা আপনার ইচ্ছা না থাকলেও পালন করতে হবে।

মনে রাখবেন সব সময় কথায় কথায় তাদের উপর কথা বলতে যাবেন না। এটা কখনই উচিত নয়। আপনি জামাই হন বা হবু জামাই হন, কিছু প্রশ্নের উত্তর কখনই সরাসরি দেবেন না। এই পরিস্থিতিতে আপনি কি করবেন জেনে নিন।

আপনার শশুর বাড়ি আপনার পছন্দ না হলে সেটা আপনি কখনই বলতে জাবেন না। বা আপনার শশুরের কেনা ফ্লাট পছন্দ না হলে আপনাকে মানিয়ে নিতে হবে, কারণ আপনাকে ভাবতে হবে আপনার বাবা মা অনেক কষ্ট করেই সেটা করেছেন।

আপনার নিজের স্ত্রীর নামে কোনো কথা তাদের কাছে বলতে যাবেন না। কারণ মনে রাখবেন মেয়ের বাবারা কিন্তু মেয়ের নামে কোন কথাই শুনবেন না, কারণ মেয়েদের প্রতি তাদের থাকে অপার ভালোবাসা।

আপনার শাশুড়ির রান্না যদি আপনার ভালো না লেগে থাকে তাহলে আপনি সেটা নিয়ে কখনই কিছু বলবেন না, বরং ভালো হয়েছে বলে তারিফ করবেন। আপনার শশুর বাজারে গিয়ে আপনার জন্য সব থেকে ভালো মাছ বা সবজি কিনে আনেন, তাই সেই কষ্টের দাম আপনাকে দিতেই হবে।

আপনার রোজগার আপনার শশুরের কাছে কম লাগতেই পারে। কারণ বিয়ের আগেই উনি এই বিষয়ে আপনাকে প্রশ্ন করেছেন, কিন্তু এই ব্যাপারটা নিয়ে বেশী কথা বলতে জাবেন না।

তবে এর থেকে আরোও অনেক প্রশ্নের মুখো-মুখি হতে হবে আপনাকে। কিন্তু আপনাকে মনে রাখতে হবে সব বিষয় উত্তর দিলে চলবে না। আপনাকে চুপ থাকতেই হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here