বাড়িতে দুটো শঙ্খ ব্যবহার করেন, হতে পারে চরম বিপদ…

0
7064

হিন্দু শাস্ত্র মতে শঙ্খ ব্যবহার একটা গুরুত্বপূর্ণ দিক। প্রত্যেক হিন্দু বাড়িতে শঙ্খ ব্যবহারের প্রচলন আছে। প্রতিদিন সকালবেলা ও সন্ধ্যাবেলা শঙ্খ বাজিয়ে পুজো করার রীতি রয়েছে প্রত্যেক হিন্দু বাড়িতে। হিন্দু শাস্ত্রে কথিত আছে যে শাঁখ শ্রী বিষ্ণুর অন্যতম অস্ত্র। আর সেই শাঁখে ফু দিয়ে বাজালে বাড়ি থেকে সমস্ত অশুভ শক্তি দূর হয়ে যায়।

শুধু তাই নয়, শঙ্খ কালা জাদুর প্রভাব থেকে দূরে রাখে। বৈজ্ঞানিক মতে শঙ্খের পবিত্র ধ্বনি শরীরের জীবানু মুক্ত রাখতে সাহায্য করে। শুধু হিন্দু ধর্মে নয়, বৌদ্ধ ধর্মেও এই নিয়ম প্রচলিত আছে। পুজো হোক বা কোনো শুভ অনুষ্ঠান, বাঙালি বাড়িতে শঙ্খ বাজানো একটি প্রচলিত রীতি।

বর্তমানে বেশিরভাগ বাড়িতেই দুটো শঙ্খ ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এই শঙ্খ ব্যবহারের কিছু নিয়ম আছে সেগুলি না মানলে হতে পারে চরম বিপদ। পুরান অনুযায়ী সমুদ্র মন্থনের সময় উঠে এসেছিল শঙ্খ, যা পরবর্তীকালে ভগবান বিষ্ণুর হাতে স্থান পায়।

এই শঙ্খ ব্যবহার করার সময় কিছু নিয়ম অবশ্যই মেনে চলা উচিত। অবশ্যই মেনে চলা দরকার, যে শঙ্খটি বাজানো হয় সেই শঙ্খ ধুয়ে সেই জল যেন পুজোয় ব্যবহার না করা হয়। বাড়িতে দুটো শাঁখ রাখলে একসাথে একঘরে দুটো শাঁখ রাখা উচিত না।

বাজার থেকে শাঁখ কেনার পরেই সেটা ব্যবহার করা উচিত না। আগে ভালো করে গঙ্গাজল দিয়ে ধুয়ে তারপর ব্যবহার করা উচিত। শাস্ত্রমতে শঙ্খ সবসময় গঙ্গাজল দিয়ে ধুয়ে হলুদ কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখা উচিত।

শাস্ত্রমতে বাড়িতে দুটো শঙ্খ থাকলে যেটি বাজানোর জন্য সেটি হলুদ কাপড়ে আর অন্যটি সাদা কাপড়ে মুড়ে রাখা উচিত। এতে সংসারে শুভ শক্তির আগমন ঘটে। হিন্দু শাস্ত্রমতে দেবাদিদেব শিবের মাথার উপরের দিকে শঙ্খ রাখবেন না যাতে শঙ্খের জল কোনোভাবেই শিবের মূর্তিতে বা শিবলিঙ্গে পরে।

প্রতি সোমবার শঙ্খপুজো করা যেতে পারে। এতে পরিবারের আর্থিক উন্নতি হয়। পরিবারের কল্যানের জন্য প্রতিদিন সকালে শঙ্খধ্বনি দেওয়া যেতে পারে। অনেকেই সূর্যদেবের পুজোর সময় গঙ্গার জল শাঁখের মধ্যে দিয়ে সেটি পুজোর সময় ব্যবহার করেন, কিন্তু সেটি সম্পূর্ণ ভুল ধারণা।